অনলাইনে ব্যবসা শুরু করার পূর্বে কি কি বিষয় চিন্তা করা উচিত

নতুন বা পুরাতন ব্যবসা করতে চাওয়ার পূর্বে অবশ্যই আপনাকে কিছু কিছু বিষয় জেনে রাখতে হবে। আপনি সঠিক ভাবে ব্যবসা শুরু করতে না পারেন তাহলে ক্ষতির সম্নূখ হবেন এটাই স্বাভাবিক।

আজকে এই লেখার মাধ্যমে আপনি জানতে পারনে কি ভাবে অনলাইনে ব্যবসা শুরু করতে হয়। অথবা একটি নতুন অনলাইন বিজনেস আইডিয়া কিভাবে প্রতিষ্টিত করতে হয়।

অনলাইনে ব্যবসা শুরু করার ‍পূর্বে যা যা করা দরকার

  • বাজেট তৈরি করা
  • ব্যবসার ধরন
  • বাৎসরিক অনুমানিক বিক্রি
  • পন্য সরবরাহ
  • সার্ভে করা
  • অনলাইন ব্যবসার নিয়ম নীতি

বাজেট তৈরি করা

অনলাইন এবং অফলাইন যে কোন ব্যবসা শুরু করার পূর্বে আপনাকে পরিপূর্ণ বাজেট তৈরি করতে হবে। বাজেট ব্যতিত আপনি ব্যবসা শুরু করলে প্রয়োজনীয় কাজ গুলো সম্পূর্ণ করতে পারবেন না। আপনাকে প্রতিটি সেক্টরের জন্য বাজেট তৈরি করতে হবে।

অনলাইন ভিত্তিক ব্যবসা হলে যে সকল বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

  • ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য বাজেট।
  • ওয়েবসাইট পরিচালনা করার জন্য কর্মী নিয়োগ।
  • ডিজিটাল মার্কেটার নিয়োগ।
  • পন্যের ছাপলাই চেন ঠিক করা।
  • পন্য ডেলিভারী এবং রির্টান দেওয়ার জন্য কর্মী।
  • অভিজ্ঞ ওয়েব ডেভলোপার নিয়োগ দিতে হবে।

ব্যবসা শুরু করার প্রথম দিক থেকে আয় করা সম্ভব নয় সুতরাং মিনিমাম ৫ মাস ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য নিদিষ্ট মূলধন যোগান রাখতে হবে। ব্যবসা শুরু করার প্রথম অবস্থা থেকে লাভ করতে পারবেন বিষয়টা এমন নয়।

অনলাইনে ছোট আকারে ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করতে চাইলে মিনিমাম ৫ থেকে ১০ লক্ষ টাকা মূলধন দরকার আছে। সুতরাং কারো প্ররোচনায় পরে হাতে ১০ হাজার টাকা দিয়ে ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করতে যাবেন না।

ব্যবসার ধরন

প্রতিটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট প্রায় কয়েক হাজার পন্য নিয়ে তাদের ব্যবসা শুরু করে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোন কিছুতেই ভালো কিছু করতে পারে না।

হ্যাঁ আপনার ওয়েবসাইট কাস্টমার এবং দোকানদ্বারের মধ্যকার সেতু হয়ে কাজ করলে সেটা ভিন্ন বিষয়। কিন্তু আপনি ওয়েবসাইটের মধ্যে আপনার পন্য বিক্রয় করতে চাইলে বিষয়টা ভাবার আছে।

  • নিদিষ্ট কোন পন্যকে নির্দেশ করে ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করা উচিত। এতে করে কাস্টমারকে খুশি রাখা যায়।
  • সহজে যে কোন সমস্যার সমাধান করা যায়।
  • ধিরে ধিরে আপনার ওয়েবসাইটি একটি ব্রান্ডে প্রতিষ্টিত হবে।
  • জনপ্রিয়তা লাভ করার পর পন্যের ক্যাটাগরি সংখ্যা বৃদ্ধি করা যেতে পারে।

পন্য নির্বাচন এবং মূল্য

এমন কোন ধরনের পন্য নির্বাচন করা যাবে না যেটা সহজে পাওয়া যাবে না। স্টাক আউট হয়ে যায় এমন পন্য বিক্রয় না করাই ভালো। এতে করে ব্যবসার মধ্যে একধরনের নেগেটিভ অভিজ্ঞতার সৃস্টি হয়।

পন্য নির্বাচন করার সাথে সাথে পন্যের দামের বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে। এমন দাম নির্বাচন করতে হবে যেন সকল ধরনের কাস্টমার আপনি টার্গেট করতে পারেন।

শুধু উচ্চবৃত্ত বা মধ্যবৃত্তকে টার্গেট করে কোন ধরনের পন্যের দাম নির্বাচন করা যাবে না। একই সাথে নিম্ন মধ্য বৃত্তদের কথাও চিন্তা করতে হবে।

ব্যৎসরিক অনুমানিক বিক্রি

আপনি যে পন্যটি ব্যবসার করার জন্য নির্বাচন করছেন সেটা ব্যৎসরিক অনুমানিক বিক্রি কেমন হতে পারে সেটার জন্য ডাটা কালেক্ট করা উচিত।

দেখা গেল আপনি যে প্রোডাক্ট বাছাই করেছেন সেটার ব্যৎসরিক বিক্রি ২ থেকে ৩ কোটি টাকা। এর বাইরে খুব কম বিক্রি হয় তাহলে আপনি যে কাস্টমার টার্গেট করছেন সেটা একটি লিমিটেড কাস্টমার।

এমন ব্যবসা শুরু করা উচিত নয় যার ব্যবসা নির্ধারিত। নির্ধারিত ব্যবসা একটা সময় পর থেমে যায়। তাছাড়া নতুন প্রতিযোগি বাজরে আসলে কোন ভাবেই ব্যবসা করা সম্ভব নয়।

আপনাকে এমন একটি পন্য বাছাই করতে হবে যার বাজার বিক্রি প্রতিদিন বৃদ্ধি পায়। এবং যার চাহিদা আনলিমিটেড। যে ব্যবসা করবেন তার পন্যের চাহিদার কোন শেষ হবে না।

পন্যের সরবরাহ

পন্যের সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। সররবাহ নিশ্চিত করার সাথে সাথে মানের কোন ছাড় দেওয়া যাবে না।

আপনাকে একই সাথে মিনিমাম ৩টা থেকে ৪টা পন্য সরবরাহ কারী সংগ্রহ করতে হবে। কারন আপনি ব্যবসা করার মাধ্যমে যে মানটা অর্জন করবেন সেটা কোন ভাবেই শেষ হতে দেওয়া যাবে না।

একই সাথে পন্যের মানে কোন ধরনের হেরফের করা যাবে না। প্রয়োজনে আপনি একদিনের মাল দ্বিতীয় দিন সরবরাহ করুন কিন্তু পণ্যের মান কখনো নিম্ন করা যাবে না।

সার্ভে করা

অনলাইনে প্রদান করা সার্ভিসটি আপনার কাছে নতুন হয়ে থাকলে সেটার জন্য অবশ্যই সার্ভে করার দরকার আছে। সার্ভে করার মাধ্যমে আপনি আপনার পন্য সম্পর্কে সঠিক ধারনা পাবেন।

আপনি আপনার পন্য বা সেবার সার্ভে যে কোন শোস্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে করতে পারবেন। সার্ভে করার মাধ্যমে পন্য বা সেবার সমস্যা গুলো সমাধান করা যায়।

ব্যবসার নিয়ম-নীতি

যে কোন দেশে ব্যবসা করার জন্য কিছু নিয়ম-নীতি থাকে। আপনি যখন বাংলাদেশে ব্যবসা শুরু করবেন তখন এখানকার আইন অনুযায়ি ব্যবসা নিতে হবে।

নিয়ম-নীতি মেনে আপনাকে অনলাইন ব্যবসা করতে হবে। যে কোন ধরনের প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট সংগ্রহ করার পর ব্যবসা শুরু করা উচিত।

ব্যবসা সম্পর্কে আরও কিছু জানার থাকলে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। যোগাযোগ করার জন্য কন্ট্রাক পেজ থেকে ইমেইল সেন্ড করুন।

হোম

This div height required for enabling the sticky sidebar